Wellcome to National Portal
Text size A A A
Color C C C C

সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ইতঃপূর্বে বাস্তবায়িত উদ্ভাবনী ধারণা, সহজিকৃত ও ডিজিটাইজকৃত সেবার ডাটাবেজ

বি-আর পাওয়ারজেন লিমিটেড

 

ইতঃপূর্বে বাস্তবায়িত উদ্ভাবনী ধারণা, সহজিকৃত ও ডিজিটাইজকৃত সেবা্র ডাটাবেজঃ

 

হালনাগাদকৃতঃ ৩০-১২-২০২৩

 

৫ 

ক্রমিক নং

ইতঃপূর্বে বাস্তবায়িত উদ্ভাবনী ধারণা, সহজিকৃত ও ডিজিটাইজকৃত সেবা্/আইডিয়ার নাম

সেবা্/আইডিয়ার সংক্ষিপ্ত বিবরণ

সেবা্/আইডিয়াটি কার্যকর আছে কি-না/ না থাকলে কারণ

সেবা গ্রহীতাগণ প্রত্যাশিত ফলাফল পাচ্ছে কি-না

সেবার লিংক

মন্তব্য

০১.

ডিজিটাল সেবার মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে বিল প্রসেসিং করার নিমিত্ত চেকলিস্ট প্রদান ((সেবা ডিজিটাইজেশন ২০১৯-২০))।

ডিজিটাল সেবার মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে জ্বালানি বিল প্রসেসিং করার জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট এর একটি চেকলিস্ট প্রদান করা হয়। সকল সরবরাহকারী ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বিল দাখিলের সময় উক্ত চেকলিস্ট পূরণ করে জমা দেয়। যার ফলে বিল প্রসেসিং এর ধাপ ও সময় হ্রাস করা সম্ভব হয়েছে।

হ্যাঁ, সেবাটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/45nJBdo

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০২.

মাস্কিং এসএমএস এর মাধ্যমে বি-আর পাওয়ারজেন লিঃ এর সকল ক্ষুদ্রবার্তা প্রেরণ (ডিজিটাল সেবা ২০২০-২১)

মাস্কিং এসএমএস এর মাধ্যমে বি-আর পাওয়ারজেন লিঃ এর সকল ক্ষুদ্রবার্তা প্রেরণ

হ্যাঁ, সেবাটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://portal.adnsms.com/

 

০৩.

স্বয়ংক্রিয় ইলেকট্রনিক বার্তা প্রেরণ পদ্ধতি এবং আন্তঃবিভাগীয় তথ্য ও উপাত্ত বিনিময় সহজীকরণ (সেবা ডিজিটাইজেশন ২০২১-২২)

এসএমএস ও ই-মেইলের মাধ্যমে ঠিকাদারদের স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্দিষ্ট দিনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা, Notification of Award (NOA) ইত্যাদির নোটিফিকেশন প্রেরণ করা হচ্ছে। একই সাথে ফাইল শেয়ারিং প্লাটফর্ম তৈরি করার মাধ্যমে অফিসে হার্ডকপির ব্যবহার সীমিত করা হচ্ছে। 

হ্যাঁ, সেবাটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

http://brpowergen.bizzntek.com/

 

০৪.

জ্বালানি পরিবহন বিল প্রসেসিং সহজীকরণ (সেবা সহজীকরণ ২০১৯-২০)

জ্বালানি পরিবহন বিল সহজীকরণ

হ্যাঁ, সেবাটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/46zjnpk

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০৫.

বাজেট মতামত গ্রহণ সহজীকরণ (সেবা সহজীকরণ ২০২০-২১)

বাজেট মতামত গ্রহণ প্রক্রিয়াতে পূর্বে ১২টি ধাপ ও ৩ দিন সময়ের প্রয়োজন ছিল। বর্তমানে সহজীকরণের পরে তা হ্রাস করে ৯টি ধাপ ও ২দিনে বাজেট মতামত গ্রহণ করা যাচ্ছে।

হ্যাঁ, সেবাটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/46zjnpk

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০৬.

স্বয়ংক্রিয়ভাবে কড্ডা ১৫০ মেঃ ওঃ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সড়ক বাতিসমূহ চালু ও বন্ধকরণ (সেবা সহজীকরণ ২০২১-২২)

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সড়ক বাতিসমূহ পূর্বে কর্মচারীদের দ্বারা ম্যানুয়ালি অপারেট করা হত যার ফলে সকাল, সন্ধ্যা ও বৃষ্টিকালীন সময়ে যথাযথভাবে চালু/বন্ধ করা সম্ভব হত না। ফলে বিদ্যুতের অপচয় হত। স্বয়ংক্রিয়ভাবে সড়ক বাতিসমূহ চালু ও বন্ধকরণের মাধ্যমে একদিকে যেমন কর্মচারীদের কর্মঘন্টা হ্রাস হয়েছে অপরদিকে বাৎসরিক প্রায় ৭০০০ কিঃওঃ ঘন্টা বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা সম্ভব হচ্ছে।

হ্যাঁ, আইডিয়াটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/46zjnpk

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০৭.

থার্মাল ইমেজ ক্যামেরার মাধ্যমে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের যন্ত্রপাতির রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় হ্রাসকরণ (উদ্ভাবনী উদ্যোগ ২০২০-২১)

থার্মাল ইমেজ ক্যামেরার মাধ্যমে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের যন্ত্রপাতির রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় হ্রাসকরণ।

হ্যাঁ, আইডিয়াটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/3ZM5i5U

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০৮.

সোলার ডে-টিউব লাইট স্থাপন (উদ্ভাবনী উদ্যোগ ২০২১-২২)

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ইঞ্জিন রুম, ওয়ার্কশপ ও অন্যান্য স্থানে সূর্যের প্রাকৃতিক আলোর ব্যবহার করার মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ হ্রাস করা হয়েছে। টিসিভি বিশ্লেষণ অনুযায়ী সোলার ডে-টিউব লাইট স্থাপনের মাধ্যমে বাৎসরিক প্রায় ২০০০ কিঃওঃ ঘন্টা বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা হচ্ছে।

হ্যাঁ, আইডিয়াটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/3ZM5i5U

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল

০৯

হাই টেম্পারেচার কুলিং ওয়াটার (HTCW) অপচয়রোধ ও কেমিক্যাল ব্যয় হ্রাসকরণ (উদ্ভাবনী উদ্যোগ ২০২২-২৩)

কড্ডা ১৫০মেঃওঃ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে স্থাপিত নয়টি ইঞ্জিনের হাই টেম্পারেচার কুলিং ওয়াটারের (HTCW) ড্রেন লাইন পরিবর্তনের মাধ্যমে ইঞ্জিনে ব্যবহৃত পানির পুনঃব্যবহার করা হয়েছে। যার ফলে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাৎসরিক ৭০,০০০ টাকার (প্রায়) কেমিক্যাল ব্যয় কমানো সম্ভব হচ্ছে এবং পরিবেশ দূষণ হ্রাস করা হয়েছে।

হ্যাঁ, আইডিয়াটি চালু আছে।

সেবা গ্রহীতাগণ এর সুবিধা ভোগ করছেন।

https://bit.ly/46zjnpk

সেবাটি ডিজিটাল নয় বিধায় প্রতিবেদনের লিংক দেওয়া হল